দিল্লি-২
নর্থইস্ট -১  
গুয়াহাটির ইন্দিরা গান্ধী স্টেডিয়ামে ২-১ কে নর্থ ইস্ট কে হারিয়ে দিল্লি উঠে এল সেমিফাইনালের দ্বিতীয় স্থানে। এক ম্যাচ হাতে রেখেই দিল্লি নিজেদের কাজটা করে ফেলল। আজ ম্যাচ ঘিরে দুই দলের দুটো উদ্দেশ্য ছিল। দিল্লির প্রয়োজন ৩ পয়েন্ট। নর্থ ইস্টের ৬ পয়েন্ট। সুতরাং দিল্লির প্ল্যান ছিল গোল না করলেও গোল খওয়া যাবে না।
৩৯ মিনিটের মাথায় প্রথম গোল করে দিল্লিকে এগিয়ে নিয়ে যান রবিন সিং। তবে এই গোলের জন্য কিছুটা দায়ী প্রতিপক্ষের গোলরক্ষক রেহেনেশ। রাহেনেশের একটু সিধান্তের ভুলেই দিল্লির গোলের শুরু। অসাধারণ ভাবে ম্যাচের প্রান বাঁচিয়ে রেখেছিলেন ডবলাস।  পরিবরতে হিসেবে মাঠে নেমে দলকে জয় এর মুখ দেখান দস স্যান্তোস । মাঠে নেমেই বারবার ক্রস, যেভাবে গোলের জন্য ছুটছিলেন তাতে তার এই গোল প্রাপই ছিল।
নর্থইস্ট এর দিক থেকে অনেক বেশি আক্রমণ আসলেও দলের হয়ে একমাত্র গোল করেন সাত্তিয়াসেন। দিল্লির প্রথম গোলের কিছু পরেই তার এই গোল দলকে সমতায় ফিরিয়ে আনে। তবে দলকে জেতাতে পারেনা। আজ নর্থইস্ট একটু বেশি আক্রমণাত্মক খেলেছে।  তবে প্রশংসা করতে হয় সান্তোশের। ৪ জনকে অতিক্রম করে বাঁ পায়ে যে শক্তিশালী গোল করেন, তা অসাধারণ। রেহেনেশও আজ দুরন্ত পারফর্ম করেছেন। কিন্তু ফুটবলে ভাগ্য বলে একটা কথা থাকে। আর সেটাই ছিল না ফারিয়াসের।
আজ ম্যাচ জুড়ে ছিল উত্তেজনা। হলুদ কার্ডও দেখতে হয় অনেক। চিকাও, ভিনিসিয়াস, গাদজে, রবিন সিং, স্যান্তোস। হিরো অব দি ম্যাচও হন দোস স্যান্তোস। ১২ ম্যাচ খেলে দিল্লির দখলে ২১ পয়েন্ট। সেমিফাইনালের প্রথম  দল হিসাবে কাল জায়গা করে নেন কলকাতা। আর আজ সেমিফাইনালের দ্বিতীয় স্থান নিল দিল্লি।